মাকে নিয়ে আত্ম কথন!!

মা এই একটি বর্ণের মাঝে পৃথিবীর সকল বর্ণ যেন বিলিন হয়ে যায়!
পৃথিবীর সব ভাললাগা আর ভালোবাসা যেন একটি মানুষের বুকের মাঝে লুকায়িত! এই
একজন মানুষ হতে পারে সকল সন্তানের কল্যান কামিতা! সেই মায়ের কষ্টটা বুঝেছি
ঠিক নিজে যখনই মা হয়েছি তখন! এর আগে এত গভীরভাবে কখনো মায়ের কষ্ট উপলদ্ধি
করতে পারিনি! ২০০৪ সাথে যখন ফুপাতো বোনের ছেলে হবে সেদিনের মাতৃ যন্ত্রনায়
সে বলেছিল মাগো মা তুমি কষ্ট করেছ আমাকে নিয়ে আমি আজকে বুঝেছি! আজকে থেকে
প্রতিজ্ঞা করছি আর কখনো তোমাকে কষ্ট দিবোনা! সেদিন ফুপাতো বোনের কথাগুলোকে
সরাসরি শুনতে না পেলেও আরেক ফুপুর মুখে শুনে মনে হয়েছিল যেন আমি সেই বোনের
থেকেই কথাগুলো শুনেছি! কথাগুলো বলতে যেয়ে সেই ফুপু বলেছিল প্রত্যেক মেয়েই
মায়ের প্রকৃত কষ্টটা বুঝতে পারে যখনই সে মা হয়! এর আগে কোন মেয়েরা তা বুঝতে
পারেনা! আর ছেলেরা তো কখনোই বুঝতে পারেনা মায়ের মাতৃ যন্ত্রনা কত বেশী!
মেয়েরা বুঝলেও সেটা অনেক দেরি হয়ে যায়! কেউ কেউ মায়ের কষ্ট বুঝলেও মায়ের
জন্য কিছুই করতে পারেনা কারন হিসেবে বলা যায় মেয়েরা স্বামীর অধীনস্ত তাই মন
চাইলেও মাকে কিছু দিতে পারেনা! আবার কেউ কেউ স্বামীর আয় সল্প হওয়ার কারনে ও
দিতে পারেনা! তাই মনের ইচ্ছাকে কখনো অপূরন রাখতে হয় কখনো বা পূরন করা যায়
প্রয়োজনের তাগিদে! প্রবাসের কারাগার থেকে যখনই কল করি কখনো যদি বোনদের সাথে
কথা বলে বা আব্বুর সাথে কথা বলে রেখে দেই তখনই মা ছোটদের মত করে আব্বুকে
বলেন ওতো আমাকে ভুলে গেছে! পরে কল করলে বলে যে কিরে আমার সাথে কথা না বলে
রেখে দিলে সেদিন; বলেই কেঁদে দেন আরো বলেন বুঝেছি এখন তো কোলে সন্তান সেই
তো এখন তোর মা তাই আর আসল মায়ের কথা মনে পড়েনা! আমি বলি মা মাগো এমন সন্তান
আর দশটা থাকলেও কেউই তোমার মত হতে পারবেনা! তুমিই তোমার মত! মাকে শান্তনা
দিতে বলি মাগো তোমার নাতনী তো তোমার পায়ের কেনু আঙ্গুলের সমানও এখনো হয়নি!
তো চিন্তা করো তুমি কত বড় মা! মা তখন হেসে বলে কই নিজের সন্তানকে তো বুকে
নিয়ে আছিস আমাকে তো নিতে পারিস না! কি বলবো জবাব পাইনা তখন! চুপ করে
প্রসঙ্গ পরিবর্তন করি! মাকে অন্য কোন বাক্য দিয়ে হাসাতে ট্রাই করি! মা তুমি
ও তোমার বেয়াইনের জন্য মেয়েকে ছোট বেলাতেই বিয়ে দিয়ে দেব যাতে করে তোমরা
দেখে যেতে পারো আমার কথা শুনে মা হাসেন আর বলেন এতদিন কি হায়াত পাবো? তখন
আমি বলি আল্লাহর সাথে এই বলে প্রার্থনা করে কন্টেক করেছি যে আমার মেয়ের
বিয়ে আর আমার আগে যেন আল্লাহ তোমাকে ডাক না দেন! ইনশা-আল্লাহ তাই হবে!
কয়েকদিন থেকে মায়ের জন্য মনটা খুবই খারাপ তাই মাকে নিয়ে লিখলাম! কোন ভাষা
জানা নেই তারপরও লিখতে বসলাম লিখেছি মনের আবোল-তাবোল ভাবনাগুলো! একটি মায়ের
গান শুনে মনটা আরো দূ্র্বল হয়ে পড়লো! তাই লিখতে না বসে পারলাম না! আমার মা
বাবা ও শশুর শাশুড়ীর জন্য সবাই দোয়া করবেন উনারা যেন নেক হায়াত পান এবং
আল্লাহর প্রিয়পাত্রী হয়ে এখান থেকে যেতে পারেন! আমিন!

গানটির লিংক সবার সাথে শেয়ার করছি হয়তো আমার মত প্রবাসী কাঙালদের ভালো লাগবে!

বিষয়: সাহিত্য

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)