‘’বৃদ্ধ মাকে দেখে কবরের ভয়’’

একজন বৃদ্ধ মাকে দেখলাম একজন আলেমা আপার হাত ধরে কাঁদছেন। এর একটু আগে সেই আলেমা আপা মহিলাদেরকে কোরআন ও হাদীস শিখাচ্ছিলেন। কোরআনের আয়াত পাঠ করে তার তরজমা সহকারে বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন।


আবার হাদীস পাঠ করে সাথে সাথে হাদীসের অর্থও বুঝাচ্ছিলেন। উনার শেখানোর ধরন দেখে সহজেই বুঝতে পারে কোরআনে আল্লাহ আমাদেরকে কি আদেশ করেছেন আর কি নিষেধ করেছেন। সাথে এও বুঝতে পারছেন যে, এর বাস্তবায়ন করতে হবে নবী (স) এর জীবনার্দশ থেকে।

আর আমি যে কথা বলছিলাম একজন বৃদ্ধ মা সেই আলেমা আপার হাত ধরে কাঁদছেন আর বলছেন মাগো আমি তো পড়তে জানিনা, তবে তোমার পড়া শুনে মনের ভেতর খুবই প্রশান্তি অনুভব করি আমার মনটা ভরে যায় তোমার তেলোয়াত শুনে। মা আমি তো বৃদ্ধ হয়ে গেছি আর এই বয়ষে এসে বুঝতে পারছি যৌবন কাল বৃথা গেছে আমার।


মাগো আমাকে কি আল্লাহ মাফ করবেন? আলেমা আপা বললেন আপনি যে এই বয়ষে এসে বুঝতে পারছেন আপনার কি করা দরকার ছিল এবং চেষ্টা করছেন শেখার জন্য আল্লাহ চাহে হয়তো আপনার গুনাহ মাফ করে দেবেন। বৃদ্ধ মা তো খুব কাঁদছেন আর বলছেন মাগো আমার কেউ নাই আমাকে এসব শিখাবে।


আমার কি উপায় হবে কবরে? কি উপায় হবে হাশরে? কি জবাব দেব আল্লাহকে? আলেমা আপা বললেন আপনি দোয়া করতে থাকুন হে আল্লাহ আমাকে ঈমানদার না বানিয়ে দৃত্যু দেবেন না। আমাকে আপনার বন্ধু না বানিয়ে মৃত্যু দেবেন না। আমার বংশধরদেরকে ঈমানদার না বানিয়ে ও মৃত্যু দিয়েন না।


আর শিখার জন্য চেষ্টা করতে থাকুন তাহলে আল্লাহ আপনাকে এই উছিলায় হয়তো মাফ করে দিতে পারেন। আর শুকরিয়া যে আপনি বুঝতে পেরেছেন। আপনার থেকে অনেক অনেক ছোট বয়ষের যুবক যুবতীও এই কথা বুঝতে পারেনা তার পৃথিবীকে কিভাবে থাকা উচিৎ? কিভাবে জীবন পরিচালনা করা উচিৎ?

বৃদ্ধা তো কাঁদছেন আর কাঁদছেন আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন আমাকে যেন আল্লাহ মাফ করে দেন। উপস্থিত সবাই বলল আমরা দোয়া করি আল্লাহ আপনাকে মাফ করে পরিপূর্ণ ঈমাদার বানিয়ে এবং আল্লাহর বন্ধুদের তালিকা ভুক্ত করে মৃত্যু দিন। আর আখেরাতে ডান হাতে আমলনামা দিন।

এবং আপনার ব্যপারে আল্লাহর থেকে উত্তম ফায়সালা করুন। আমি শুধু চেয়ে চেয়ে দেখলাম আর মনে মনে ভাবলাম আমাদের কি করা উচিৎ? বৃদ্ধা মা সবার কাছে দোয়া চেয়ে বিদায় নিলেন। আর এর থেকে আমি শিখলাম একজন বৃদ্ধা মা বয়ষ হবে একশতের কাছাকাছি কিন্তু তিনি আল্লাহর আযাবকে এত ভয় করছেন যে, চিৎকার করে করে কাঁদছেন।

(ছোট একজন মেয়ে যে কিনা কোরআন ও হাদীসের ব্যপারে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন) আর এই জন্য সেই মা এই আপার হাতে ধরে ধরে কাঁদছেন। তাহলে আমাদের আরও কত বেশি কান্না করার দরকার? আরও কত বেশি আল্লাহর আযাবকে ভয় করা দরকার? আরও কত বেশি নিজের আমল আখলাক ঠিক করা দরকার?

আরও কত বেশি ধর্ম প্রচারে নিজেকে পেশ করা দরকার? আমাদের সবার মনে এই বৃদ্ধ মায়ের মত আল্লাহর ভয় আসা প্রয়োজন। আসলে আমাদের সবারই প্রয়োজন আখেরাতে সামান-পত্র গুছানোর কাজে সময় ব্যয় করার। কত সময় বাঁচবো এই পৃথিবীতে আমি আপনি সবাই?


আমি আপনি সবাই কেউই জানিনা। কোন দোকানে ঝুলছে আমার আপনার সবার কাফনের কাপড়? কে পড়াবে আমার আপনার সবার জানাজা? কোন জমিনের তলদেশে হবে আমার আপনার সবার কবর? কি জবাব দেব কবরে? কি জবাব দেব মহান আল্লাহকে?

আমরা কি সবাই সবার আখেরাতের সামানা গুছানো সম্পন্ন করেছি বা করছি? মহান আল্লাহ এই বৃদ্ধা মাকে ও আমাদের সবাইকে সঠিক বুঝ দান করুন ও সঠিক পথে পরিচালনা করুন। আর সবাইকে সঠিক পথের উপর দৃঢ় রাখুন আমরন পর্যন্ত ও মৃত্যু দিন পূর্ণ ঈমানের সাথে।
আমিন!! আমিন!! আমিন!!

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.3 (3টি রেটিং)

ভালো লাগলো লেখাটা।
আল্লাহ আমাদের জীবনকে আখিরাতমুখী করে গড়ার তাউফিক দিন

আল্লাহ আমাদের সকলের সহায় হোন ।

-

SAMUDRO

সালাম

 

সুন্দর  পোস্ট।  আমরা  যেন  সময়  থাকতে  ভাল  ভাল আমল বেশি  করে করতে পারি , আমিন ।

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.3 (3টি রেটিং)