আসুন ভাল কাজ করি (১ম পর্ব)

আমরা প্রতিদিন কোনো না কোনো কাজ করি। আর কাজ না করলেও সময় বা দিন আমাদের জন্য বসে থাকেনা। সময় চলতে থাকে আল্লাহর দেয়া আপন রীতি নীতেতে, আমরা বিভিন্ন কাজ করে সময় কাটাই, কেউ চাকুরী করে, কেউ ব্যবসা করে, কেউ  সফর করে, কেউ গল্প করে, কেউ গল্পের বই পড়ে, কেউ গান গেয়ে, কেউবা শুনে, কেউ রূপচর্চা করে, কেউ নিজে সেঁজে, কেউবা অন্যকে সাঁজিয়ে, কেউ অভিনয় করে, কেউবা অভিনয় দেখে, কেউবা নানান খেলায় মত্ত হয়ে। যে যেভাবেই করুক সময় তো বয়ে চলছেই, আর আমরা এগিয়ে যাচ্ছি মৃত্যুর পানে। এঅবস্থায় থাকতে থাকতে কারো কারো মৃত্যু হয়ে যায়, কারো ঈমানের হালতে, কারো আবার বেঈমানের হালতে এতে কারো কোনো আফছূছ নেই, আমরা আফছূছ করিওনা। আর আমরা এসবকিছু করি দুনিয়ার জীবনের জন্য, আর এদুনিয়ার জীবনের জন্য যদি এতোকিছু করা লাগে তো আখেরাতের জন্য আমাদের কি করা উচিৎ? আমরা কি কেউ আনমনে ভাবি ওপারের কথা? কি হবে ওপারে? কি হবে কবরে? কি হবে হাশরে? কি হবে মিজানে? আমলনামা কি ডান হাতে পাবো না বাম হাতে? এসব ভাবো না আমাদের প্রত্যেক মানুষের ভাবা উচিৎ নয় কি? অবশ্যই ভাবা উচিৎ কারন আমরা সবাই বিবেকবান ও মরনশীল। আর আমাদের সবারই মৃত্যুর স্বাদ আস্বাদন করতে হবে। সবচেয়ে বড় সত্য হল একদিন আমরা কেউ ছিলাম না। আর একদিন কেউ থাকবোনা। আর থাকবোনা বলেই আমাদের পরোকাল নিয়ে ভাবা উচিৎ, কি ভাবে এই অবস্থা নিয়ে মহান আল্লাহর সামনে দাড়াবো? আল্লাহ যখন জানতে চাইবে কি কাজে সময় ব্যয় করেছো? এই একটা প্রশ্নের জবাব দেয়ার জন্য আমরা কি সবাই প্রস্তুত আছি? যদি প্রস্তুত না থাকি তো আজ থেকেই প্রস্তুতি নেয়া শুরু করি। যদি রাজী থাকেন তো গতদিন গুলোর কাজের সাথে যোগ করি আজকের একটি ভাল কাজ, নিজে ভাল কাজ করি আর মুসলমান ভাইয়ের জন্য ভাল চিন্তা করি। আসুন মুসলমান ভাইয়ের যে কোনো কাজে বা বিপদে অনুগ্রহের হাত বাড়াই, কেননা হাদীসে আছে,
তরজমাঃ- যারির ইবনে আব্দুল্লাহ রাযিঃ থেকে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুল (সঃ) বলিয়াছেন আল্লাহ তা’য়ালা ঐব্যক্তির উপর রহম করেনা, যে মানুষের উপর রহম করেনা।
‘’বোখারী শরীফ’’

আসুন প্রতিদিন বা প্রতিদিনের শেষে রাতে অন্তত একটি করে ভাল কাজ করি। মানুষের সাথে ভাল ব্যবহার করি। একটি করে সুন্নত আদায় করি সওয়াব পাওয়ার আসায় আর নবীজি (সঃ)এর সুপারিশ পাওয়ার আসায়। এবং দিনের শেষে রাতে নিজ নফসের হিসাব নেই আজ সারাদিন কি কি করেছি। কয়টি ভাল আর কয়টি মন্দ? আল্লাহ হিসাব নেয়ার আগে আমরা নিজেরা নিজেদের হিসাব নেই। আর সংকল্পবদ্ধ হই কারো উপকার করতে না পারলেও অন্তত ক্ষতি করবো না। আজকের ভাল কাজটি হল সালাম দেয়া এবং নেয়া। কেননা হাদীস শরীফে আছে প্রথম সালামকারী অহংকার মুক্ত
(বায়হাকী)

অন্য হাদীসে আছে, হযরত আবু হুরায়রা রাযিঃ- বর্ণনা করেন যে, রাসূলুল্লাহ (সঃ) এরশাদ করিয়াছেন, তোমরা ঐপর্যন্ত জান্নাতে যাইতে পারবে না, যে পর্যন্ত মুমিন না হইয়া যাও। (অর্থাৎ তোমাদের জিন্দেগী ঈমান ওয়ালা না হইয়া যায়) এবং তোমরা ঐপর্যন্ত মুমিন হইতে পারিবে না, যে পর্যন্ত পরষ্পর একে অপরকে মহব্বত না কর। আমি কি তোমাদেরকে ঐ আমলটি বলিয়া দিবনা, যাহা করিলে তোমাদের মধ্যে মহব্বত সৃষ্টি হয়? (উহা এইযে,) তোমরা পরষ্পর সালামের খুব প্রচলন ঘটাও
বর্ণনায়ঃ- মুসলিম

আসুন আমরা সবাই নবীজি (সঃ) এ বাণীকে বাস্তবায়ন করি এবং ঈমান ওয়ালা হই
আর মহামূল্যবান জান্নাতের মালিক হই, আমরা সবাই এই ছোট আমল করে কি জান্নাতের মালিক হতে চাইনা?
আল্লাহ আমাদের সবাইকে তৌফিক দিন। 

আমিন।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (5টি রেটিং)

আমাদের প্রত্যেকের মনে আপনার মতো সংকল্প থাকা উচিত।সুন্দ্র পোষ্ট লেখার জন্য অন্তর থেকে মোবারকবাদ জানাচ্ছি।

**সালাম

আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ

অনুরোধ আসুন ভাল কাজ করিতে শুধু পাঠক হবো না, ভাল আমল কারী হতে চেষ্টা করি। আল্লাহর যাযা পাওয়ার আসায়। আল্লাহ আমাদের তৌফিক দিন, সহজ করে দিন, আর কবুল করে নিন।

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

জাজাকাল্লাহ

সালাম

আপনাকেও অনেক অনেক যাযা

দোয়া করবেন আমার জন্য

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

"যাবের রাযিঃ থেকে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুল (সঃ) বলিয়াছেন আল্লাহ তা’য়ালা ঐব্যক্তির উপর রহম করেনা, যে মানুষের উপর রহম করেনা।" -এ হাদীসের অনুসারী হতে পারলেও আমাদের সমাজ থেকে অনেক মারামারি-কাটাকাটি দূর হয়ে যেত।

জাযাকিল্লাহ্ খায়ের লেখাটির জন্য। এ হাদীসখানা আমি সহীহ্ আল বুখারীতে এভাবে পেয়েছি-

عَنْ جَرِيرِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لَا يَرْحَمُ اللَّهُ مَنْ لَا يَرْحَمُ النَّاسَ –رواه البخاري

অনুবাদ: জারীর রাদ্বিয়াল্লাহু 'আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন রাসূল (সঃ) বলেছেন, আল্লাহ তা'আলা ঐ ব্যক্তির উপর রহম করেন না, যে মানুষের উপর রহম করেনা। [বুখারী]

-

"নির্মাণ ম্যাগাজিন" ©www.nirmanmagazine.com

সালাম

আপনাকে ধন্যবাদ

সঠিক হাদীস পোষ্ট করার জন্য

আমার বানানে ভূল হয়েছে। আগামীতে সংশোধন করে লিখতে চেষ্টা করবো ইন........লাহ

দোয়া করবেন।

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

সালাম

 

*****

 

খুব  ভাল পোস্ট  ।   আমরা যেন  অন্তত খারাপ   কাজ  থেকে নিজেকে  দূরে  রাখতে পারি ,  আশা করি  সেটাও  ভাল কাজ হিসাবে বিবেচিত হবে  Laughing

সালাম

আপনাকে ধন্যবাদ

কুদৃষ্টি হইতে একবার চোখের হেফাজত করা দশ হাজার রাকআত তাহাজ্জুদ অপেক্ষা উত্তম।

হাকীমূল উম্মত হযরত থানবী (রহঃ)

তাহলে আপনারটা তো অবশ্যই ভাল কাজ হবে।

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

"এঅবস্থায় থাকতে থাকতে কারো কারো মৃত্যু হয়ে যায়, কারো ঈমানের হালতে, কারো
আবার বেঈমানের হালতে এতে কারো কোনো আফছূছ নেই, আমরা আফছূছ করিওনা।"

-অনেক কঠিন অথচ নির্মম বাস্তব একটি কথা- .....এতে কারো কোনো আফছূছ নেই, আমরা আফছূছ করিওনা....

সঠিক কথাই বলেছেন! আপনাকে যাযাকুমুল্লাহ খাইরান ফিদ্দারইন!

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (5টি রেটিং)