নিজেদের ইচ্ছামতো ফি আদায়ের দিন শেষ!

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফির ক্ষেত্রে একক কোনো কাঠামো ছিলনা। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজেদের ব্যয়কে ভিত্তি করে টিউশন ফি নির্ধারণ করে থাকতো। একেক সাবজেক্টে টিউশন ফি একেক বিশ্ববিদ্যালয়ে একেক ভাবে হত। শুধু তাই নয়, প্রতি সেমিস্টারে বিনা কারণে বাড়ানো হত ফি। নীতিমালা ছাড়াই
এভাবে চলছিল। তাই এই টিউশন ফির লাগাম টানার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এজন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০১০ সংশোধন করতে গঠন করা হয়েছে ৫ সদস্যের কমিটি। তারা শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসির সঙ্গে কথা বলে কাজ করবে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আর্থিক স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে বোর্ড অব ট্রাস্টিজের (বিওটি) সরকারের ৩ জন সদস্য রাখা হবে। এ ছাড়াও সিন্ডিকেট, একাডেমিক কাউন্সিল, অর্থ কমিটি ও শৃঙ্খলা কমিটি গঠন, শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি নির্ধারণ, ট্রেজারার, ভিসি, প্রো-ভিসি, শিক্ষক নিয়োগ; চাকরিবিধি ও বেতন কাঠামোসহ সব কিছু তদারকি করবে সরকারের নিয়োজিত সদস্যরা। আইনের সংশোধনে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজেদের ইচ্ছামতো ফি আদায় করতে পারবে না। ফলে একই বিষয়ে একেক বিশ্ববিদ্যালয়ে টিউশন ফি ব্যবধান কমে আসবে। এখন থেকে প্রয়োজন ছাড়াই আর বাড়াতে পারবে না কোন ফি।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None