স্রষ্টা ছাড়া সৃষ্টি!

মানুষ স্বভাবগতভাবেই ধার্মিক, সে ধর্ম ছাড়া স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারেনা। যেমন সে স্বভাবগতভাবেই
সামাজিক
,
সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে একাকী বসবাস করতে পারেনা, সামাজিকতা ও ধার্মিকতা মানুষের স্বভাবজাত ব্যাপার।

এজন্য যারা ঈমানের দৌলত ও দৃঢ়বিশ্বাসের শীতলতা
থেকে বঞ্চিত
, তাদের জীবনের প্রকৃত কোন
তৃপ্তি ও স্বাদ নেই। তারা আনন্দ ও আয়েশের সকল উপকরণের মাঝে জীবনযাপন করেও প্রশান্তির
দেখা পায় না

আল্লাহর প্রতি ঈমান না থাকলে তার অনিবার্য পরিণাম
দাড়ায়
, সঙ্কীর্ণ ও বিষাদময় জীবন। ঈমানহীন আত্মা
সদাসন্ত্রস্ত
, হীন ও দূর্বল থাকে, সে আত্মায় থাকেনা কোন স্থিরতা ও প্রশান্তি। আর সেই দুঃসহ ও বিষাদের জীবন
থেকে রেহাই পেতে বহু মানুষ আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়।

আল্লাহ তা'আলা বলেন: আপনি বলে দিন- তাকিয়ে দেখ যা কিছু আছে মহাকাশমণ্ডলীতে ও পৃথিবীতে [সূরা: ইউনুস,
আয়াত: ১০১]

যে ব্যক্তি আসমানের দিকে তাকাবে, আসমানের নিপুণ সৃষ্টি, আসমানের
সৌন্দর্য-বৈচিত্র্য এবং তার সুউচ্চতা ও শক্তির প্রতি লক্ষ্য করবে
, সে তার মধ্য দিয়ে আল্লাহ তাআলার অসীম শক্তি ও ক্ষমতাই দেখতে পাবে।

আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন: তারা কি
তাদের উপরে আসমানের দিকে তাকায় না
, কিভাবে আমি তা বানিয়েছি
এবং তা সুশোভিত করেছি
? আর তাতে কোনো ফাটল নেই। আর আমি যমীনকে
বিস্তৃত করেছি
, তাতে পর্বতমালা স্থাপন করেছি এবং তাতে প্রত্যেক
প্রকারের সুদৃশ্য উদ্ভিদ উদ্গত করেছি আল্লাহ অভিমুখী প্রতিটি বান্দার জন্য জ্ঞান ও
উপদেশ হিসেবে
(সূরা কাফ: ৬-৮)

প্রথম আমেরিকান মহাকাশচারী জন গ্লেন বলেন: এ ধরনের সৃষ্টি
দেখেও তুমি আল্লাহর উপর ঈমান আনবে না এটা অসম্ভব! এ সৃষ্টি তো আমার ঈমানকে আরো মজবুত
করেছে। আমি এ চিত্রের আরো কিছু বিবরণ চাই।

আল্লাহ তা'আলা বলেন: অতঃপর তুমি বার
বার তাকিয়ে দেখ-তোমার দৃষ্টি ব্যর্থ ও পরিশ্রান্ত হয়ে তোমার দিকে ফিরে আসবে
  সূরা:
মূলক
, আয়াত: ৪  ﴿

একদা এক গ্রাম্য বেদুঈনকে বলা হয়েছিলো কিভাবে তুমি তোমার
প্রতিপালককে চিনলে
? তখন তিনি বললেন-পদচিহ্ন
অতিক্রমকারীর প্রমাণ বহন করে
, উটের মল উষ্ট্রীর অস্তিত্বের
প্রমাণ বহন করে। তাহলে সুউচ্চ আসমান
, সুপ্রসস্ত জমিন এবং উত্তাল
সমুদ্র কেন সর্বশ্রোতা এবং সর্বদর্শীর অস্তিত্বের প্রমাণ করবে না
?

কাউকে যদি বলা হয়, একটি বিশাল অট্টালিকা বা একটি রাজপ্রাসাদ নিজে নিজেই সৃষ্টি
হয়েছে
, তাহলে কেউ নিশ্চয় এটা বিশ্বাস করবেন না। যদি কেউ বলে,
দেখ, এই দালানটি হঠাৎ নিজের থেকে তৈরি হয়ে
গেল
, সবাই তাকে পাগল বলবে। তাহলে বলুন, এ বিশ্ব চরাচর, এই যে সুউচ্চ আকাশ আর সুবিস্তৃত
যমীন
, এই ঊর্ধ্বজগত আর নিম্নজগত কীভাবে একজন স্রষ্টা ছাড়া
সৃষ্টি হতে পারে
? কোনো বানানেওয়ালা ছাড়া আকস্মিকভাবে অস্তিত্ব
লাভ করতে পারে
? নিশ্চয় এসবের একজন স্রষ্টা আছেন। একজন অসীম
ক্ষমতাবান নিয়ন্ত্রক আছেন।

'আল্লাহর প্রতি ঈমান' এর অর্থ হলো, এমর্মে দৃঢ় বিশ্বাস করা যে,-
আল্লাহই সবকিছুর প্রতিপালক, মালিক ও স্রষ্টা
এবং সালাত
, সিয়াম, দু', আশা, ভয়, বিনয় ও নম্রতাসহ অপরাপর সকল ইবাদাতের একক হকদার কেবল তিনিই এবং তিনিই পূর্ণতার
সব গুন-বৈশিষ্ট্যে পরিপূর্ণ ও যাবতীয় ত্রুটি ও অপূর্ণতা হতে পবিত্র।

উতসঃ https://www.with-allah.com/bn

 

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None