সত্য বলা, চলা ও প্রচারই হোক বিসর্গের ভাষা...

নামকরণে পরামর্শ – পব তিন।

যাহোক, আমরা জানলাম যে, সন্তানের জন্যে একটি সুন্দর অর্থবোধক নাম কতটা জরুরী। 

এবার সম্মানীত পাঠক/পাঠিকাদের অনুরোধ রক্ষার্থে নীচে আমি কতিপয় বিশুদ্ধ আরবী নামের একটি তালিকা পেশ করছি। বাংলার পাশে আরবী লিখে সাজাতে গেলে প্রচুর সময়ের প্রয়োজন। তাই শুধু বাংলাটি লিখলাম। তবে কেউ কোনো নামের আরবী বানান জানতে চাইলে দেয়া হবে।

ছেলেদের নাম:

১- মুহাম্মাদ । অর্থ: প্রশংসিত, খ্যাতিমান।

২- আহমাদ । অর্থ: অত্যন্ত প্রশংসনীয়, প্রশংসাকারী।                          

নোট: আমাদের দেশে কেউ কেউ বিকৃত করে ‘আহমেদ’ বা ‘আহম্মেদ’ লিখে। এভাবে লিখা ভুল। কারন, কুরআনে এ শব্দটি ‘আহমাদ’ উচ্চারণে এসেছে। (সুরা সফ ৬) ইচ্ছে করে বিকৃত করা মোটেই ভালো আচরণ নয়।

৩- আবদুল আযিয। অর্থ: মহা পরাক্রমশালী আল্লাহর দাস বা বান্দা

৪- আবদুর রাহমান। অর্থ: পরম করুণাময় আল্লাহর দাস বা বান্দা

৫- আবদুর রাহীম। অর্থ: পরম কৃপাশীল আল্লাহর দাস বা বান্দা

৬- আবদুল মালিক। অর্থ: মহা অধিপতি আল্লাহর দাস বা বান্দা

আপনার রেটিং: None

নামকরণে পরামর্শ – পব দুই।

আর এক বাংলাদেশী বন্ধু (মাক্কায়) তার মেয়ের নাম রেখেছন ‘আশারা মুবাশ্বিরা’। আশারাহ মুবাশ্বিরাহ অর্থ ‘সুসংবাদপ্রাপ্ত দশজন’। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যে দশজন সাহাবীকে জান্নাতের সুসংবাদ দিয়েছেন, তাদেরকে একত্রে আশারাহ মুবাশ্বিরাহ বলা হয়। যাহোক একবার তিনি তার এ মেয়ের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যান এবং সিরিয়ালে নাম লিখিয়ে বসে রইলেন। ডাক্তার এর এসিস্টেন্ট আশারাহ মুবাশ্বিরাহ বুঝতে না পেরে (অর্থাৎ তার ধারণায়ও আসেনি যে, এটি কারোর নাম হতে পারে) শুধু মুবাশ্বিরাহ লিখে ওয়েটিং – এ থাকতে বলেন। তিন ঘন্টা পার হয়েছে, তার মেয়েকে ডাকা হয়না। অনেক কষ্টে তিনি এসিস্টেন্ট এর কাছে গেলেন। এসিস্টেন্ট রাগত স্বরে বললেন: ইয়া গাবি, নাদাইতুল ইসম সিত্তাহ মাররাত। খালাছ। ইনতাহা আদদাওয়াম (ওহে মুর্খ বোকা, তোমার মেয়ের নাম ধরে আমি ডেকেছি ছয়বার, আজকের মতো ডিউটি শেষ)।

মুবাশ্বিরা মুবাশ্বিরা বলে ছয়বার ডাকা হয়েছিল কথাটি মিথ্যা নয়। কিন্তু আমার বন্ধুটি বুঝতে পারেননি, তিনি তিন ঘ্ন্টা ধরে কান উৎকর্ণ করে ছিলেন – কখন ডাকা হবে আশারা মুবাশ্বিরা।  

আপনার রেটিং: None

নামকরণে পরামর্শ – পব এক

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম

‘নামের বড়াই করোনাকো নাম দিয়ে কি হয়

নামের মাঝে পাবেনাকো সবার পরিচয়’

এটি একটি গানের কথা। কথাগুলো ক্ষেত্র বিশেষে হয়তোবা আংশিক সত্য, তবে সবসময় নয়। যদি হতো তাহলে নামের বদলে সবত্রই সকলে নাম্বার ব্যবহার করতেন।

নামের মাঝে সবার পরিচয় না পাওয়া গেলেও আবার এ নামের মাধ্যমেই মানুষের গুণ বা চারিত্রিক ভিন্নতার কথাগুলো মানুষ জানতে পারে। উমার (রাদিয়াল্লাহু আনহু) কে ‘আল ফারুক’, আবু বাকর (রাদিয়াল্লাহু আনহু) কে ‘আস সিদ্দিক’ বিশেষণ এরই প্রমাণ।  

সুতরাং মানতে হবে, নামে অনেক কিছু হয়। নাম মানুষের আকীদা, আদর্শগত অবস্থান, জাতীর নিশানী এবং দ্বীন-এর পরিচয় ব্যক্ত করে। নামের ভেতরে মিশে থাকে মানুষের অনেক অভিপ্রায়, অনেক স্বীকারোক্তি। আর একারনেই রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে কেউ এলে তিনি তার নাম জিজ্ঞেস করতেন। পছন্দ হলে সন্তোষ্ট হতেন। আর না হলে নাম পরিবর্তন করে দিতেন। 

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

যুক্তির নিরিখে কুরআন – আট

কুরআন থেকে হেদায়াত পেতে চাইলে এর পাঠককে আরও যা হ্রদয়ংগম করা জরুরী তা হচ্ছে: আল্লাহ যদি মানবকুলের বাসনা পূরণার্থে দুনিয়াতেই পাপীর শাস্তি এবং পূণ্যবানের পুরস্কারের ব্যব্স্থা করেন তাহলে কে সত্যপথ অবলম্বন করে আছে, আর কে ভ্রান্তপথ – তা সুস্পষ্ট হয়ে যায় বটে, কিন্তু এটি করলে পরীক্ষা অনুষ্ঠানের (যে জন্য আল্লাহ এ পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন) কোন মূল্য থাকেনা। কুরআনের বক্তব্যও অর্থহীন প্রমাণীত হয়।

আরও যে চির সত্যটি তাকে অনুধাবন করতে হবে তা হচ্ছে:

এ দুনিয়া প্রাচীন রোমান সম্রাটদের রংগভূমির মতো কোনো coliseum  বা এ জাতীয় কিছু নয়। সত্য ও মিথ্যার মধ্যে দ্বন্দ্ব বাধিয়ে, মানুষকে পরস্পরের মধ্যে লড়াই করিয়ে আনন্দে অট্রহাসি হাসার জন্য এ ভুবন সৃজিত হয়নি। বরং আল্লাহ এখানে মানুষ সৃষ্টি করেছেন পরীক্ষার নিমিত্ত। এটা দেখার জন্য যে, কে কেমন কাজ করে।

যেমন, তিনি বলেছেন: “তিনিই সেই সত্তা, যিনি জন্ম এবং মৃত্যু সৃষ্টি করেছেন, এটা পরীক্ষা করার জন্য যে, কার কর্ম ভাল” (সুরা আল মুলক ১-২)।

আপনার রেটিং: None

যুক্তির নিরিখে কুরআন – সাত

কুরআন পাঠকের জন্য শর্তাবলী:

সাধারণত: কোন বই পুস্তক অধ্যয়ন করলে আমরা দেখি যে, তাতে রয়েছে একটি সুনির্দিষ্ট বিষয়বস্তু। লেখক ঐ বিষয়বস্তুর উপর ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন অধ্যায় ও অনুচ্ছেদ বিভক্ত করে বিন্যাসের ক্রমানুসারে এক একটি বিষয়ের উপর তত্ব বা তথ্য সরবরাহ করে থাকেন। 

কুরআন কারিম কিন্তু তেমনটি নয়। কুরআন পাঠ শুরু করলে দেখা যায় যে, একটি বিষয়বস্তুর পর আকস্মিকভাবে অন্য একটি প্রসংগের আলোচনা শুরু হয়ে গেছে। বক্তব্য বিষয় বার বার মোড় পরিবর্তন করছে। বিষয়ভেদে আলোচনার বিন্যাস বা বক্তব্যকে ভিন্ন ভিন্ন অধ্যায় বা অনুচ্ছেদে বিভক্ত করার কোন চিহ্নও কোথাও নেই। এককথায় বই পত্র যেভাবে লিখা হয় এ গ্রন্থ মোটেও তেমন নয়। 

একজন পথহারা ব্যক্তি এসব দেখে সংশয়াপন্ন হয়ে পড়েন। ভাবেন – এ-ই কি সেই কিতাব যার সম্পর্কে জোর গলায় এতো কিছু বলা হচ্ছে। এবং আরও কত কি! 

আপনার রেটিং: None

যুক্তির নিরিখে কুরআন – ছয়

১৬) ড: মরিস বুকাইলি আরও লিখেছেন:

“আমরা দেখেছি, বিশ্ব সৃষ্টি সম্পর্কে
বাইবেলের পুরাতন নিয়মে যেসব বক্তব্য বিদ্যমান বিজ্ঞানের তথ্য প্রমাণের আলোকে তা
একটাও গ্রহণযোগ্য নয়। অবশ্য এতে বিস্মিত হওয়ার তেমন কোন কিছু নেই। কেননা বাইবেলের
যে সেকেরডেটাল পাঠ থেকে আমরা বিশ্বসৃষ্টি সম্বন্ধে যেসব বক্তব্য পাচ্ছি সেসব রচিত
হয়েছিল ইয়াহুদীদের ব্যবিলন থেকে উৎখাতের প্রাক্কালে পুরোহিতদের দ্বারা। এ
পুরোহিতরা সে সময়ে এমনভাবে বাইবেলের এসব বাণী রচনা করেছিলেন, যেসব বাণীতে তাদের
নিজেদের মনমত ধর্মতাত্বিক অভিমতই শুধু প্রতিফলিত হতে পেরেছিল।

আপনার রেটিং: None

যুক্তির নিরিখে কুরআন – পাচ

 ১৫) কুরআনে বৈজ্ঞানিক তথ্য:

কুরআন কারিমের আর এক বিস্ময়কারীতা হচ্ছে এ গ্রন্থে বৈজ্ঞানিক তথ্যাবলীর উপস্থিতি। যা কিনা আধুনিক বিশ্ব, বিশেষ করে বস্তুবাদের অনুসারীদের মুখে তালা লাগিয়ে দিয়েছে। 

কুরআনে উল্লেখিত এসকল বিষয়াবলী নিয়ে
লেখালেখি এবং বইয়ের সমাহার এত প্রচুর যে নতুন করে আর তা লিখা নিস্প্রয়োজন। তবে
আমার আলোচ্য বিষয়ের সমাপ্তি টানার আগে এ প্রসংগে বিজ্ঞানীমহলের কিছু সাক্ষ্য
এবং আত্ন-উপলব্ধির কথা  তুলে ধরা
প্রনিধানযোগ্য মনে করছি।

আপনার রেটিং: None

যুক্তির নিরিখে কুরআন – চার

১৩) মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি
ওয়া সাল্লাম এর সাথে মাদিনার ইয়াহুদীরা কিরুপ আচরণ করেছে দুনিয়াবাসী তা অবগত। যদি
মুহাম্মাদ সা: নাবী না হতেন, কুরআন কারিম যদি তার নিজের লিখা হতো তাহলে
প্রতিউত্তরে এ কুরআনে মুসা (আলাইহিস সালাম) সম্পর্কে বিরুপ কথাবার্তা থাকতো।
মানবীয় দুবলতাহেতু এমনটা হওয়া ছিল অতি স্বাভাবিক। কিন্তু অবাক ব্যাপার, কুরআনে
মুসা (আলাইহিস সালাম) কে এক অতি উচ্চ মাকাম দান করা হয়েছে।

আপনার রেটিং: None

যুক্তির নিরিখে কুরআন – তিন

১০) মানুষ নাবী হবার দাবী করে কোনও স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে। নেতৃত্ব, ধন-সম্পদ অর্জন, প্রতিহিংসা, সত্য নাবীকে টেক্কা দিয়ে আপন  স্বার্থ উদ্ধার ইত্যাদি মিথ্যা নবুয়াতের দাবীদারদের একমাত্র লক্ষ্য হয়ে থাকে। কিন্তু মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর জীবনেতিহাস ভিন্ন কথা বলে। পচিশ বছর বয়সে তিনি মাক্কার শ্রেষ্ঠ ধনী মহিলাকে (খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহা) বিয়ে করেন। তিনি চাইলে এ স্ত্রীর অর্থ সম্পদ ব্যবসায়ে খাটিয়ে আরবের ধনকুবের হতে পারতেন এবং এর সাথে নবুয়াতের তকমা যোগ করে হতে পারতেন পুরোহিতসম্রাট। তার সামনে অবারিত ছিলো বসত বাটি সমৃদ্ধ বিমুগ্ধ দুনিয়া। কিন্তু তাকে সে বিমুগ্ধ দুনিয়ার ধারে কাছেও ঘেষতে দেখা যায়নি। 

আপনার রেটিং: None

যুক্তির নিরিখে কুরআন – দুই

৬) কুরআনের সংখ্যাতাত্বিক ও গাণিতিক বন্ধনের রহস্যটি একটি আশ্চযজনক বিষয়। এতে রয়েছে উনিশ সংখ্যার এক অদ্ভুত মিল। আপনি যদি এ মিল রেখে কুরআন রচনা করতে যান, তাহলে আপনাকে ৬০,০০০,০০০,০০০,০০০,০০০,০০০,০০০,০০০,০০০ বার প্রচেষ্টা চালাতে হবে। অর্থাৎ কুরআন শুরু থেকে শেষ পযন্ত এতবার আপনাকে পড়তে হবে শুধুমাত্র এর গাণিতিক বন্ধনে মিল রাখার জন্য এ বং এ চেষ্ঠার পর কেবলমাত্র একবারই আপনি সফলকাম হবেন। 

সুতরাং একাজ সম্পন্ন করতে আপনাকে কতো বছর আয়ু পেতে হবে তা সহজেই অনুমেয়।

৭)  মানুষের আকল বা বিবেক বুদ্ধির বিরুদ্ধে যায়, কুরআনে এমন কোনো কথা বা নির্দেশনা নেই। যেমন উদাহরণস্বরুপ, কুরআন কারিমে বলা হচ্ছে – একজনের পাপের বোঝা অন্যজন বহন করবেনা। একজনের পাপের কারনে অন্যজনকে শাস্তি দেয়া হবেনা।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)
Syndicate content