জাগ্রত বিবেকের অপেক্ষায়

 

বিশেষজ্ঞদের মতে
আইএসআইএস এর সৃষ্টিকর্তা ইসরাইল আমেরিকা এবং এদের নাম ধরে সারা দুনিয়ায় মুসলিম দেশগুলোকে
একের পর এক আক্রমণে নিঃশেষ করে দেয়া হচ্ছে। অত্যান্ত আশ্চর্যের
বিষয় হল এইসকল জঙ্গি গোষ্ঠী গুলো অত্যান্ত ভয়ঙ্কর হওয়া সত্ত্বেও এরা কোন দেশের রাষ্ট্রক্ষমতায়
নাই বা যেতে পারে না বা সেই ক্ষমতাও তাদের নাই। তারা সবসময় পলাতক
অদৃশ্যমান কিন্তু অত্যান্ত কথিত ভয়ঙ্কর এবং তাদের নামে সংঘটিত নানা অপকর্মের বিরুদ্ধে
দেশে দেশে লাখ লাখ লোক হত্যা করা হয়। পৃথিবীব্যাপী মুসলিমরা নির্যাতিত অথচ চূড়ান্ত অপবাদে
আক্রান্ত।
যে
কোন কথিত হামলায় সারা বিশ্বব্যাপী দুই চারজন মরলেও এক ইরাকে আক্রমণ করে আমেরিকা ২ লাখের
অধিক সাধারণ লোককে হত্যা করেছে।২/৪ জনের মৃত্যু যদি সন্ত্রাসী কার্যক্রম
হয় তবে লাখ লাখ লোক হত্যাকাণ্ডে কেন বিবেক জাগ্রত হয় না?  অমুসলিমের চেয়েও বড় আধুনিক
অথচ নামে মুসলিম লোকজনই এই সন্ত্রাসী গ্রুপের সদস্য তা ইতিমধ্যে বিভিন্ন আক্রমণের পর
স্পষ্ট হয়ে গেলেও এদের নামে ইসলামী জঙ্গি শব্দের প্রয়োগই প্রমাণ করে ইসলাম কে কোণঠাসা
করে রাখা এবং ইসলামকে ধ্বংস করাই এসব শব্দ প্রয়োগ ও অপবাদের মুল লক্ষ্য।  সর্বশেষ বাংলাদেশের ঘটনায়
কথিত জঙ্গিদের সবাই অতি আধুনিক এবং ক্ষেত্রবিশেষ অনইসলামিক কার্যক্রমের সাথে জড়িত লোকজনের
নামে
"নারায়ে তাকবীর" শ্লোগান শব্দটি ব্যাবহার
করে বিনাকারনেই কোটি কোটি সত্যিকারের মুসলিমকে অপমান করেছে অত্যান্ত সুনিবিড়ভাবে। কথিত
জঙ্গিরা ইসলামের নামে যে কাজগুলো করছে তারা কখনও কি চিন্তা করছে তারা যে কাজগুলো
করছে তা ইসলাম সমর্থন করে কিনা? কবে তাদের বিবেক জাগ্রত হবে। তারা ফিরে আসবে আবার
সুস্থ জীবনে, সুস্থ সমাজ গঠনে তারা অবদান রাখবে এ প্রত্যাশা সবার। 

 

 

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None