সত্য বলা, চলা ও প্রচারই হোক বিসর্গের ভাষা...

নেতৃত্বের প্রশংসা দেশে ও দেশের বাইরে

আপনার রেটিং: None

এই সময় বিচার বিভাগ পুরোপুরি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ

বর্তমান সরকারের সময়ে
বিচার বিভাগ পুরোপুরি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ। বর্তমানে বিচার বিভাগ
সম্পুর্ন স্বাধীন ও নিরপেক্ষভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সরকার কোনভাবেই হস্তক্ষেপ করছে
না। কারণ সরকার বিশ্বাস কর যে বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ না করলে আইনের শাসন
প্রতিষ্টা হবে না। কয়লা খনি দুর্নীতি মামলা নিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার লিভ টু আপিল
খারিজে উচ্চ আদালতের সিদ্ধান্তকে আমরা স্বাগত জানাই। খালেদা জিয়া নানা অজুহাতে বিচার
ব্যবস্থাকে এড়িয়ে চলতে চাইছেন। বর্তমান সরকারের সময়ে বিচার বিভাগ পুরোপুরি স্বাধীন
ও নিরপেক্ষ। বিচার ব্যবস্থা স্বাধীন বলেই কেবল খালেদা জিয়াই নয়, আওয়ামী লীগের অনেক
নেতা ও এমপি বিভিন্ন মামলায় মুখোমুখি হচ্ছেন। কয়েকদিন আগে ভিশন-২০৩০
ঘোষণা করেছে বিএনপি। ভিশন-২০৩০ ঘোষণার পর বিএনপির নেতা-কর্মীরাই এখন পাল্টাপাল্টি
অবস্থানে রয়েছে।ইতোমধ্যে তারা ভিশনের চমক দেখাতে শুরু করেছেন। এখন বিএনপির কেন্দ্রীয়

আপনার রেটিং: None

অপরাজনীতির স্বপ্ন কখনোই সফল হবেনা

 

আপনার রেটিং: None

যেভাবে স্বাগত জানাব মাহে রমজানকে

আল্লাহ থেকে দূরে, পাপে-অন্যায়ে

কালের শূন্য গর্ভে লীন হয়ে হয়ে

গোনাহের কালিমায় ডুবন্ত হৃদয়ে

আপনার রেটিং: None

ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ততা বাড়ছে গ্রামীণ মহিলা কর্মীদের

 

আপনার রেটিং: None

আসুন ক্ষতিকারক পলিথিন বর্জন করি

বাজার করতে
গেলেই সব পণ্যের সাথে পলিব্যাগ দিচ্ছে। বাজার করে বাসায় নিয়ে আসার পর সেগুলো একটির
পর একটি খুলে খুলে একসঙ্গে জমিয়ে পাশের কোন ডাস্টবিন কিংবা ফাঁকা স্থানে ফেলে দেয়া
হয়। তারপরে
কোথায় যায় সেই পলিথিনগুলো?
এভাবে প্রতিদিন শত শত, হাজার হাজার, লাখ লাখ, কোটি কোটি পলিথিন জমা হচ্ছে ভূ-উপরিভাগে।
তারপর সেগুলো আবার বাতাস, বৃষ্টির পানির স্রোত, বন্যা ইত্যাদির মাধ্যমে স্থানান্তরিত হয়। আর সেভাবে ভূপৃষ্ঠময় একটি
পলিথিনের স্তর জমে গেছে। পলিথিন একটি অপচনশীল দ্রব্য। বৈজ্ঞানিক গবেষণায় প্রাপ্ত

আপনার রেটিং: None

যে কারনে গ্রিক দেবি থেমিসের মূর্তিটি একপাশে সরানো হয়েছে

সুপ্রিম কোর্টের সামনে স্থাপিত গ্রিক দেবি থেমিসের মূর্তিটি সরানোর একমাত্র
কারণ হচ্ছে যে মূর্তিটির পিছনে বাংলাদেশের মানচিত্র ঢেকে পড়ে গিয়েছিল। সুপ্রিম
কোর্টের বাহিরে স্থাপিত বাংলাদেশের মানচিত্র মূর্তি থাকার কারনে সামনে থেকে দেখা
যাচ্ছিল না। ৩০ লক্ষ শহীদের রক্ত ও ২ লক্ষ মা বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত
বাংলাদেশের মানচিত্র কখনই আড়ালে পড়ে থাকতে পারে না। বিষয়টি বিবেচনা করে মূর্তিটি
একপাশে সরানো হচ্ছে, তবে একেবারে উঠিয়ে নেয়া হচ্ছে না। তাছাড়া সরানোর অন্য কোন
কারণও নেই। তবে কতিপয় কুচক্রী মহল বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছে। ভুল
তথ্য দিয়ে সাধারণ জনগনের কাছে বিষয়টি অন্যভাবে উপস্থাপন করছে যা ঠিক নয়। মুর্তিটি

ছবি: 
আপনার রেটিং: None

আসন্ন ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপত্তা ও যানজট নিয়ন্ত্রণে বিশেষ পদক্ষেপ

 

 

আপনার রেটিং: None

শীঘ্রই সুদিন ফিরছে সোনালি আঁশের

 

আপনার রেটিং: None

এক বাসেই ঢাকা-খুলনা-কলকাতা

আপনার রেটিং: None
Syndicate content